ঢাবি শিক্ষার্থীদের সাথে হেযবুত তওহীদের মতবিনিময়

রাজধানীতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সাথে হেযবুত তওহীদের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল সকালে ঢাকার কাঁটাবনের একটি রেস্টুরেন্টে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে মুখ্য আলোচক হিসেবে প্রতিপাদ্য বিষয়ের উপর বক্তব্য রাখেন হেযবুত তওহীদের এমাম হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম। অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের শিক্ষার্থীবৃন্দ ও ছাত্রসমাজের প্রতিনিধিগণ অংশগ্রহণ করেন।
মুখ্য আলোচকের বক্তব্যে হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম বলেন, আমরা আজ এমন একটা সমাজে বসবাস করছি যা সীমাহীন অন্যায়-অশান্তি, রক্তপাত, মারামারি, হানাহানি, যদ্ধ-বিগ্রহ, ক্ষুধা, দারিদ্র্য, নারীপাচার, শিশুপাচার, ধর্ষণ, হত্যা, দুর্নীতি ইত্যাদিতে সয়লাব। পত্রপত্রিকার পাতা উল্টালেই দেখা যায় নানা ধরণের অপরাধের সংবাদ। আজ ন্যায়ের উপর অন্যায় বিজয়ী, দরিদ্রের উপর চলছে ধনীর বঞ্চনা, শাসিতের উপর শাসকের অবিচার, দুর্বলের উপর সবলের অত্যাচরে আজ পৃথিবী যেন বাসের অযোগ্য। এমন একটি সমাজে এমন একটি ক্রান্তিকালে বসবাস করেও আমরা মসজিদ, মন্দির, গির্জা, প্যাগোডায় যাচ্ছি ¯্রষ্টাকে পাওয়ার আশায়। কিন্তু আমরা ধর্মের সত্যিকার তাৎপর্যটুকুই বুঝতে পারিনি। মানবতার কল্যাণ, মানবতার মুক্তি না মিললে ¯্রষ্টাকে পাওয়া সম্ভব নয়।
তিনি আরও বলেন, আল্লাহ তার শেষ রসুলকে তৎকালীন আরবের এমন একটি সমাজে পাঠিয়েছেন যে সমাজকে আমরা ‘আইয়্যামে জাহেলিয়াতের সমাজ’ বলে উল্লেখ করি। সেই সমাজ কেমন ছিল তা আমরা অনেকেই জানি। তখনকার আরব সমাজ অন্যায়, অবিচার, গোত্রে গোত্রে মারামারি, রক্তপাত, অশিক্ষা, কুসংস্কার ইত্যাদিতে নিমজ্জিত ছিল। সেখানে নারীদের কোনো অধিকার ছিল না, কন্যাশিশুদের জীবন্ত কবর দেওয়া হতো। কিন্তু রসুল ওই সমাজকে ইসলামের আদর্শ দ্বারা আল্লাহর সার্বভৌমত্বের ভিত্তিতে ঐক্যবদ্ধ করলেন। মাত্র কয়েকবছরের ব্যবধানে সেই আরব সমাজই জ্ঞানে-বিজ্ঞানে উন্নতি লাভ করলো, তারা তখনকার দুই দুইটি পরাশক্তিকে পরাজিত করলো, সমাজ থেকে অন্যায়-অশান্তি দূরীভূত হলো। রসুল যেভাবে তার সমাজকে পরিবর্তন করলেন, তার উম্মত হিসেবে আমাদেরও একইভাবে বর্তমান সমাজকে নিয়ে চিন্তা করা, সমাজের কল্যাণে কাজ করা উচিৎ।
হেযবুত তওহীদের সর্বোচ্চ এই নেতা বলেন, হেযবুত তওহীদকে নিয়ে নানা অপপ্রচার চালানো হয়। এসব অপপ্রচার চালিয়ে সাধারণ মানুষের ধর্মবিশ্বাসকে ব্যবহার করে একদল স্বার্থান্বেষী ধর্মব্যবসায়ী শ্রেণি আমাদেরকে নানাভাবে হয়রানি করার চেষ্টা করে যাচ্ছে। বর্তমান পৃথিবীতে একমাত্র হেযবুত তওহীদই শতধা বিচ্ছিন্ন মানবজাতিকে একটি সঠিক আদর্শের উপর আল্লাহর সার্বভৌমত্বের ভিত্তিতে ঐক্যবদ্ধ করতে কাজ করে যাচ্ছে। যে ঐক্য ছাড়া মানবজাতিই ধ্বংস হয়ে যাবে। কিন্তু এই কাজ আমাদের একার পক্ষে সম্ভব নয়। এমনকি এটা একক কোনো দলের কাজও নয়। একাজে সমাজের সকলের অংশগ্রহণ দরকার। একটি সুন্দর, সুখী-সমৃদ্ধ সমাজ গঠনে যুবকরাই হতে পারেন মূল শক্তি। তাই এ মহতী কাজে আপনাদের মতো শিক্ষিত, অগ্রগামী যুবকদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ আশা করছি।
সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন, হেযবুত তওহীদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. আলী হোসেন, প্রচার সম্পাদক এস এম সামসুল হুদা, সাহিত্য সম্পাদক রিয়াদুল হাসান, উপদেষ্টা উম্মুত তিজান মাখদুমা পন্নী, ঢাকা বিভাগীয় মহিলা বিষয়ক সম্পাদক সুলতানা রাজিয়া কনিকা।

লেখাটি শেয়ার করুন আপনার প্রিয়জনের সাথে

Share on email
Email
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on skype
Skype
Share on whatsapp
WhatsApp
জনপ্রিয় পোস্টসমূহ