সিলেটে যামানার এমামের প্রস্তাবনার উপর আলোচনা

DSC_00415

পৃথিবীময় শান্তি, সৌহার্দ্য ও আনন্দের বার্তা ছড়িয়ে দিতে ঢাকা, লক্ষ্মীপুর, টাঙ্গাইল, জয়পুরহাট, পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও, রংপুর, লালমনিরহাট ও কুড়িগ্রাম জেলার পর সিলেটের জেলা পরিষদ মিলনায়তনে দৈনিক দেশেরপত্র ও দৈনিক নিউজের যৌথ উদ্যোগে “জঙ্গিবাদ তথা যাবতীয় সন্ত্রাস দমনে আমাদের প্রস্তাবনা” এবং “অন্যায় অশান্তি দূরীকরণে সিস্টেম পরিবর্তনের বিকল্প নেই” শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। দেশেরপত্রের সিলেট বিভাগীয় ব্যুরো প্রধান মো: নুরুল আবছার সোহাগের সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন দেশেরপত্রের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক রুফায়দাহ পন্নী, দেশেরপত্রের উপদেষ্টা জনাব মসীহ উর রহমান, সিলেট জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রেজাউল করিম, জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সাজনা সুলতানা, কোম্পানীগঞ্জ দক্ষিণ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ হান্নান, সিলেট জেলা বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান বদরুজ্জামান সেলিম, দৈনিক নিউজের জেলা প্রতিনিধি নাইমুর রহমান প্রমুখ।
উদ্বোধনী বক্তব্যে অনুষ্ঠানের সভাপতি নুরুল আবছার সোহাগ আমন্ত্রিত অতিথিদের স্বাগত জানিয়ে বলেন, সামাজিক অস্থিরতা, রাজনৈতিক অস্থিরতা, জঙ্গিবাদ, যুদ্ধ, হত্যা, খুন, মারামারি, হানাহানিতে ভরপুর হয়ে পৃথিবী আজ বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। পৃথিবীর এই ক্রান্তিকালে চলমান অন্যায়-অত্যাচার ও অশান্তি থেকে মুক্তির জন্যই দেশেরপত্র সারা দেশব্যাপী অনুষ্ঠান করে যাচ্ছে। আজ আমরা সকল মতভেদ ভুলে গিয়ে নিরপেক্ষভাবে পৃথিবীতে শান্তি ফিরিয়ে আনতে করণীয় সম্পর্কে আলোচনা করব। কাজেই অন্তত: আজকে আমরা মুক্ত মন নিয়ে সকল মতভেদ ত্যাগ করে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার জন্য শপথ করি।
দেশেরপত্রের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক রুফায়দাহ পন্নী বলেন, বর্তমানে চলমান সঙ্কট থেকে মুক্তির জন্য অনেকেই সংলাপ, নির্বাচনের কথা বললেও সংলাপ, নির্বাচন জাতির মুক্তির পথ নয়। কারণ নির্বাচন হলেও জনগণের কোন লাভ নেই। নতুন সরকার আসলেও আগের মতই হরতাল, ভাঙচুর, ককটেল নিক্ষেপ, কাঁদানে গ্যাস, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি চলবে না তার কোন নিশ্চয়তা নেই। বরং অতীত অভিজ্ঞতা বলে, সেগুলোর পুনরাবৃত্তি ঘটার সম্ভাবনাই বেশি। তাই এখন বিকল্প সন্ধান করতে হবে। সেই বিকল্প ব্যবস্থা স্বয়ং আল্লাহ এ যামানার এমাম, এমামুয্যামান জনাব মোহাম্মদ বায়াজীদ খান পন্নীর মাধ্যমে আমাদেরকে পুনরায় দান করেছেন। তিনি আরও বলেন, আমি আজ সিলেটবাসীর কাছে সহযোগিতা চাইতে এসেছি। এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত সকলেই সিলেটবাসীর প্রতিনিধি। তাই আপনাদের সিদ্ধান্তই জনগণের সিদ্ধান্ত। সুতরাং আসুন, আজ আমরা একটি কথার উপর ঐক্যবদ্ধ হই যে, আমরা একই (বাবা-মা) আদম-হাওয়ার সন্তান হিসাবে আল্লাহর সত্য জীবনব্যবস্থাকে ধারণ করব। আর কোন প্রকার মতভেদে লিপ্ত হবো না।
দেশেরপত্রের উপদেষ্টা জনাব মসীহ উর রহমান বলেন, আজ আমরা দুনিয়ার কাজকর্মে এতই ব্যস্ত হয়েছি যে, আমাদের সামনে শান্তির কোন পথ খোলা আছে কিনা তা ভাবার সময় ও সুযোগ নাই। আমরা আমাদের পরবর্র্তী প্রজন্মকে কোন পরিবেশে রেখে যাব তা ভাবতে হবে। পত্রিকার পাতার সা¤প্রতিক সময়কালের লোমহর্ষক কিছু ঘটনা উল্লেখ করে তিনি বলেন, যেখানে প্রাণাধিক প্রিয় স্বামী-স্ত্রী এক অপরকে হত্যা করছে, সন্তান পিতা-মাতাকে হত্যা করছে, পিতা-মাতা সন্তানকে হত্যা করছেÑ সেখানে কোন নিরপত্তা বাহিনীই আমাদেরকে রক্ষা করতে পারবে না। তিনি সবাইকে আল্লাহর সিস্টেমে ফিরে গিয়ে একটি শান্তিময় সমাজ গড়ে তোলার আহ্বান জানান।
সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির বলেন, বর্তমান সমাজ ব্যবস্থায় শাসকগণ শাসন করেন নিজেদের স্বার্থে কিন্তু প্রকৃত এসলামে শাসকগণ মানবতার স্বার্থে শাসন করেন। দেশেরপত্র যদি তাদের প্রস্তাবনাকে প্রকৃত কোরআন-হাদিসের আলোকে জনগণের কাছে তুলে ধরতে পারে তবে জনগণ বিবেকের তাগিদেই তাদের সাহায্য করবে। সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মহিলা কাউন্সিলর শামীমা শাহীন বলেন, দেশেরপত্র আজ যে প্রস্তাবনা প্রকাশ করেছে তা কোরআন-হাদিসের আলোকে হলে তা বাস্তবায়নে আমরা পাশে থাকব। উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সাজনা সুলতানা বলেন, সাংবাদিকদের সমাজের সবাই শ্রদ্ধা করেন তাই তাদেরকে বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতার মাধ্যমে মানুষের এই বিশ্বাসকে অটুট রাখতে হবে। তিনি সিলেটবাসীর পক্ষ থেকে যামানার এমামের উক্ত প্রস্তাবনাকে স্বাগত জানান। ইউপি চেয়ারম্যান এম এ হান্নান বলেন, কোরআন সবচেয়ে বড় সংবিধান। তাই কোরআনের আইনকে সংবিধান হিসেবে গ্রহণ করলে সমস্ত রকম অন্যায়-অত্যাচার এমনিতেই হ্রাস পাবে। বদরুজ্জামান সেলিম বলেন, বর্তমানে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদের সাথে যুক্ত সকলকেই (সে যে দল বা মতেরই হোক না কেন) সংশোধিত হয়ে আল্লাহ এবং রসুলের পথে এগিয়ে আসতে হবে। সিলেট জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রেজাউল করিম বলেন, দরিদ্রতা, অশিক্ষা, ধর্মীয় অপব্যবহার ও অপব্যাখ্যাই হচ্ছে বর্তমান বিশ্বে জঙ্গিবাদ উত্থানের অন্যতম কারণ। তাই সমাজের সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ দমনে অভিভাবক থেকে শুরু করে সবাইকে বিশেষভাবে সচেতন থাকতে হবে। দৈনিক নিউজের জেলা প্রতিনিধি নাইমুর রহমান তার বক্তব্যে একজন সাংবাদিক হিসেবে সমাজের সকল গণমাধ্যমকর্মীকে বস্তুনিষ্ট সংবাদ পরিবেশনের আহ্বান জানান।
অনুষ্ঠানের একপর্যায়ে মানবতার কল্যাণে সত্য প্রকাশে দেশেরপত্রের গৃহীত বিভিন্ন কার্যক্রম এবং জঙ্গিবাদের উত্থান ও উত্তরণের উপায়ের উপর নির্মিত সংক্ষিপ্ত ভিডিওচিত্র প্রদর্শন করা হয়। সেমিনারস্থলের সম্মুখে যামানার এমাম জনাব মোহাম্মদ বায়াজীদ খান পন্নীর লেখা বিভিন্ন বইয়ের স্টল দেওয়া হয়। এতে অনেকেই হাতের কাছে পেয়ে বই সমূহ কিনে নেন।
অনুষ্ঠানের শেষে সভাপতি সকলকে চলমান সঙ্কট নিরসনে এবং যাবতীয় অন্যায়, অবিচার, অশান্তি দূরীকরণে যামানার এমামের প্রস্তাবনাটি গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনার আহবান জানান এবং উপস্থিত সাংবাদিক, সাহিত্যিক, শিক্ষাবিদ, রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী এবং সমাজের গণমান্যব্যক্তিগণকে উক্ত অনুষ্ঠানে স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করার জন্য আবারো ধন্যবাদ জানিয়ে সেমিনার সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

জনপ্রিয় পোস্টসমূহ