কুমিল্লায় দেশেরপত্রের ব্যুরো অফিস উদ্বোধন

কুমিল্লায় (বিশ্বরোড পদুয়ার বাজার) দৈনিক দেশেরপত্রের ব্যুরো অফিস উদ্বোধন করেন পরিকল্পনা মন্ত্রী আ.হ.ম. মুস্তফা কামাল এম.পি।
২২ মার্চ  ২০১৪ কুমিল্লায় (বিশ্বরোড পদুয়ার বাজার) দৈনিক দেশেরপত্রের ব্যুরো অফিস উদ্বোধন করেন পরিকল্পনা মন্ত্রী আ.হ.ম. মুস্তফা কামাল এম.পি।

মানবতার কল্যাণে সত্যের প্রকাশ’ এই শ্লোগাণকে ধারণ ও সত্য প্রকাশের দৃঢ় অঙ্গীকার গ্রহণ করে যাত্রা শুরু করে দৈনিক দেশেরপত্র। মিথ্যার আড়ালে হারিয়ে যাওয়া সত্যকে সবার সামনে উদ্ভাসন করে সকল প্রকার ধর্মব্যবসা ও ধর্ম নিয়ে অপ-রাজনীতির বিরুদ্ধে জনসচেতনতা সৃষ্টি করে দেশের ১৬ কোটি মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করাই দৈনিক দেশেরপত্রের মূল লক্ষ্য। দেশেরপত্র এ লক্ষ্যকে সামনে রেখে দেশজুড়ে নিরন্তর কাজ করে যাচ্ছে। দেশের নানা প্রান্তে ছড়িয়ে পড়ছে দেশেরপত্রের কার্যক্রম। গড়ে উঠছে আঞ্চলিক কার্যালয়। এরই ধারাবাহিকতায় গত শনিবার কুমিল্লা সদর উপজেলার বিশ্বরোড পদুয়ার বাজার এলাকায় সর্বস্তরের মানুষের স্বতস্ফূর্ত অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে দেশেরপত্রের জেলা ব্যুরো কার্যালয় উদ্বোধন করা হয়। কার্যালয়টি উদ্বোধন করেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় পরিকল্পনা মন্ত্রী আ.হ.ম. মুস্তফা কামাল এম.পি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দেশেরপত্রের ভারপ্রাপ্ত স¤পাদক রুফায়দাহ পন্নী’র সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য প্রদান করেন পরিকল্পনা মন্ত্রী। এছাড়াও সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দেশেরপত্রের উপদেষ্টা ও হেযবুত তওহীদের আমীর মসীহ্ উর রহমান, নির্বাহী সম্পাদক শফিকুল আলম উখবাহ্, কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলা চেয়ারম্যান গোলাম সরওয়ার, সদর দক্ষিণ উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও কুমিল্লা জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ আহ্বায়ক আব্দুল হাই বাবলু, সদর দক্ষিণ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের ২২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল মালেক ভুইয়া, ভাষা সৈনিক এবং মুক্তিযোদ্ধা আলী তাহের মজুমদার ও সদর দক্ষিণ উপজেলার যুদ্ধকালীন কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম। অনুষ্ঠানটির সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন দেশেরপত্রের চট্টগ্রাম বিভাগীয় সার্কুলেশন ম্যানেজার সাইফুল ইসলাম এবং কুমিল্লা ব্যুরো প্রধান নিজাম উদ্দিন। সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে পরিকল্পনা মন্ত্রী আ.হ.ম. মুস্তফা কামাল বলেন, ‘আল্লাহ পৃথিবীতে মানুষকে তাঁর প্রতিনিধি (খলিফা) করে পাঠিয়েছেন। আল্লাহর প্রতিনিধি হিসেবে পৃথিবীতে মানুষের অনেক দায়িত্ব আছে। আমাদের যার যার অবস্থান থেকে সেই দায়িত্বগুলোকে সঠিকভাবে পালন করতে হবে।’ বক্তব্যে তিনি বর্তমানের ধর্মীয় গোঁড়ামী, জঙ্গিবাদ এবং ধর্মব্যবসা প্রতিহত করতে জাতিকে সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে তোলার আহ্বান জানান। এছাড়াও তিনি ইসলামে নারী-পুরুষের ভূমিকা এবং নারীর মর্যাদার ব্যাপারে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা করেন। বক্তব্যের এক পর্যায়ে তিনি জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ দমনে দেশেরপত্রের গৃহীত উদ্যোগের ভূয়সী প্রসংশা করে এই কার্যক্রমে সর্বাত্মক সহযোগিতা করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে দেশেরপত্রের উপদেষ্টা মসীহ উর রহমান বলেন, ‘১৬ কোটি মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করার ক্ষেত্রে প্রধান বাধা হচ্ছে ধর্মব্যবসা ও ধর্ম নিয়ে অপ-রাজনীতি, যার একটি রূপ হচ্ছে জঙ্গিবাদ। জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে মানুষ সোচ্চার, অথচ ধর্মব্যবসার বিরুদ্ধে কেউ সোচ্চার নয়। এমন কি অধিকাংশ মানুষ আল্লাহ কর্তৃক নিষিদ্ধ ধর্মব্যবসাকে বৈধ মনে করে একে পৃষ্ঠপোষণ করে। কিন্তু বাস্তব সত্য হচ্ছে, ধর্মব্যবসা ও জঙ্গিবাদ একই অপশক্তির দু’টি বাহু। একে অপরের পরিপূরক, একটিকে আশ্রয় করেই অপরটি বেঁচে থাকে এবং বিকশিত হয়। ধর্মের নামে জঙ্গিবাদ যেমন নিষিদ্ধ, তেমনি ধর্মের নামে বাণিজ্য ও অর্থোপার্জন করাও নিষিদ্ধ। তাই জঙ্গিবাদ নির্মূল করতে হলে আগে ধর্মব্যবসাকে নিষিদ্ধ করতে হবে।’ এক পর্যায়ে তিনি প্রধান অতিথির দৃষ্টি আকর্ষণ করে জঙ্গিবাদ দমনে যামানার এমাম, এমামুয্যামান জনাব মোহাম্মদ বায়াজীদ খান পন্নীর পক্ষ থেকে ‘ধর্মব্যবসা এবং জঙ্গিবাদ শুধুমাত্র বলপ্রয়োগে নির্মূল হবে না, এই ভ্রান্ত-আদর্শকে সঠিক আদর্শ দিয়ে নির্মূল করতে হবে’ শীর্ষক প্রস্তাবনাটি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাথে আলোচনা করার অনুরোধ জানান। সদর দক্ষিণ উপজেলার যুদ্ধকালীন কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম তার বক্তব্যে দেশেরপত্রের কার্যক্রমকে অত্যন্ত যুগোপযোগী উল্লেখ করে এই মহতী উদ্যোগে সব ধরনের সাহায্য-সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন। সভাপতির বক্তব্যে দেশেরপত্রের ভারপ্রাপ্ত স¤পাদক শাহানা পন্নী রুফায়দাহ বলেন, ‘জাতির সামনে আজ এক গভীর সঙ্কট ঘনীভূত হচ্ছে। সেই সঙ্কট থেকে উত্তরণ পেতে হোলে ধর্মব্যবসায়ীদের মুখোস উন্মোচন না করে উপায় নেই। শুধু তাই নয়, পুরো জাতিকে ধর্ম ও রাজনীতির নামে যাবতীয় সহিংসতার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ করতে হবে। আমরা যদি জাতিকে কঠিনভাবে ঐক্যবদ্ধ করতে পারি তাহলে কোন পরাশক্তিও আমাদের কোন ক্ষতি করতে পারবে না। ঐক্যবদ্ধ করার জন্য যে উপাদান দরকার তা একমাত্র আমাদের কাছেই আছে। আমরা সে লক্ষ্যে চেষ্টাও করে যাচ্ছি এবং এনশা’আল্লাহ আমরা তা করতে পারবো। ইতোমধ্যে আমাদের করা ১০ হাজারের অধিক জনসভায় লক্ষ লক্ষ মানুষ ধর্ম নিয়ে রাজনীতি, ধর্মব্যবসা এবং জাতির জন্য ক্ষতিকর সহিংসতাপূর্ণ রাজনৈতিক কর্মসূচির বিরুদ্ধে দুই হাত তুলে ঐকমত্য প্রকাশ করেছে।’ জনসভা শুরু হওয়ার আগে একটি বিশাল মোটর সাইকেল র‌্যালি পদুয়ার বাজার বিশ্বরোড থেকে শুরু হয়ে শহরের বিভিন্ন মোড় প্রদক্ষি শেষে দৈনিক দেশেরপত্রের ব্যুরো কার্যালয়ের সামনে এসে শেষ হয়।

লেখাটি শেয়ার করুন আপনার প্রিয়জনের সাথে

Share on email
Email
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on skype
Skype
Share on whatsapp
WhatsApp
জনপ্রিয় পোস্টসমূহ